নান্দনিক সৌন্দর্যের শ্রীমঙ্গলের ‘দার্জিলিং টিলা’

লেখক: আতাউর রহমান কাজল, শ্রীমঙ্গল
প্রকাশ: ১০ মাস আগে

‘দার্জিলিং টিলা’। নান্দনিক সৌন্দর্যের দৃস্টিনন্দন এমন টিলা খুঁজে পাওয়া দুস্কর। শ্রীমঙ্গলের ৪৪ টি চা বাগানের মধ্যে এই অপরুপ সুন্দর টিলাটি অন্যতম। তবে শ্রীমঙ্গলে অনেক চা বাগানের মধ্যে একেকটি টিলা একেক রকম। প্রত্যকটিরই একটি নিজস্ব সৌন্দর্য রয়েছে। তবে শ্রীমঙ্গল উপজেলার এম আর খান চা বাগানের এই দার্জিলিং টিলাটি ভিন্ন প্রকৃতির। ভারতের দার্জিলিং চা বাগানের মতো চারদিকে সবুজের সমারোহ, নির্জন পরিবেশ- এই পর্যটন স্পটটিকে করেছে মোহনীয়।

অপরুপ সৌন্দর্য, দৃস্টিনন্দন আর নান্দনিকতায় অনিন্দ্যসুন্দর চা বাগানের এই স্থানটি ইতোমধ্যে নজর কেঁড়েছে দেশবাসীর। এম আর খান চা বাগানের ৭ নম্বর সেকশনে এই দার্জিলিং টিলার অবস্থান। নিজ চোখে না দেখলে এর সৌন্দর্যের গভীরতা অনুভব করা যাবে না। সাম্প্রতিক সময়ে এই দার্জিলিং টিলার নৈসর্গিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে প্রতিদিন শত শত দর্শনার্থী আসছেন এই দার্জিলিং টিলায়। পর্যটকরা এখানে এসে এর অপরুপ সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে প্রকৃতির সাথে মিশে গিয়ে উপভোগ করছেন এর নয়নাভিরাম সৌন্দর্য।

ভারতের দার্জিলিং চা বাগানের মতো হওয়ায় এটির নামকরন হয়েছে দার্জিলিং টিলা। বাগান কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যে টিলাটির আশপাশে পর্যটকদের জন্য কয়েকটি স্থাপনা নির্মান করে দিয়েছেন। ছবির মতো সুন্দর এই টিলাটি দেখতে এসে মানুষ হচ্ছেন মুগ্ধ। চলছে ফটোসেশন আর সেলফি তোলার প্রতিযোগীতা। কেউ আবার অপূর্ব সৌন্দর্যময় এ স্থানটির ভিডিও করে ফেসবুকে আপলোড করছেন। গত কিছুদিন ধরে দার্জিলিং টিলার নাম ছড়িয়ে পরায় পর্যটক, দর্শনার্থীদের আগমন বেড়েই চলেছে। প্রায় ৩০০ ফুট উচ্চতায় মনোমুগ্ধকর এ টিলার সৌন্দর্য আর প্রকৃতির সব রুপ-রঙ যেন এখানে এসে মিলে মিশে একাকার হয়ে গেছে।

যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হওয়ায় বিনোদনপিয়াসী মানুষ খুব সহজেই এখানে আসতে পারছেন। সারাদেশের সাথে সড়ক ও রেলপথে শ্রীমঙ্গলের উন্নত যোগোযোগ ব্যবস্থা রয়েছে। শ্রীমঙ্গল এসে সিএনজি অটোরিকশা বা মোটরবাইক যোগে মাত্র ২০/২২ মিনিটের মধ্যে পৌছে যাওয়া যায় এম আর খান চা বাগানের ৭ নম্বর সেকশনে দার্জিলিং টিলায়। পরিবহন খরচও খুব কম।

পর্যটক, দর্শনার্থী ও ভ্রমনপিপাসুদের এখন প্রথম পছন্দ দার্জিলিং টিলা। তাই এ টিলার দুর্বার আকর্ষনে ছুটে আসছেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ ও ছাত্র-ছাত্রী। অদ্ভুদ এক নির্জন পরিবেশে অবস্থিত এই টিলার আশেপাশে কোন বাড়িঘর নেই। পুরোটাই সাউন্ডলেস। ছবির মতো সাজানো-গুছানো অপরুপ সৌন্দর্যের এই দার্জিলিং টিলায় এসে প্রকৃতিপ্রেমিরা হচ্ছেন মুগ্ধ। শ্রীমঙ্গল শহর থেকে ১২ কিলোমিটার দুরে অবস্থিত এ টিলার জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে। ছুটির দিনগুলোতে এখানে পর্যটক, দর্শনার্থী ও প্রকৃতিপ্রেমী এবং স্থানীয় মানুষের সমাগম ঘটে বেশি।