বুধবার, জুন ১৯, ২০২৪
spot_img

একজন বৃক্ষপ্রেমী গোলাম মোহাম্মদ শিবলী

শ্রীমঙ্গল শহরের প্রবেশপথ ভানুগাছ-শ্রীমঙ্গল সড়কের বধ্যভূমি ৭১ থেকে চা গবেষণা ইনস্টিটিউট পয়েন্ট পর্যন্ত চা বাগানের সারি। শ্রীমঙ্গল শহরের খুব কাছে বধ্যভূমি ৭১ পেরুলেই চা-বাগান। ভাড়াউড়া চা বাগানের ফাঁড়ি বাগান ভুরভুরিয়া চা বাগানের মাঝ দিয়ে চলে গেছে আঁকা-বাঁকা পীচ ঢালা পথ। এটি শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়ক।

বধ্যভুমি ৭১ থেকে চা গবেষণা ইনস্টিটিউট পয়েন্ট পর্যন্ত সড়কের দু’পাশে একের পর এক বিভিন্ন প্রজাতির বড় বড় ফুলের গাছ। দুর থেকে দেখা যায় হলুদ, সোনালী, লাল ফুলের অপরুপ দৃশ্য। সোনালু, কৃষ্ণচূড়াসহ আরো অনেক প্রজাতির ফুল গাছ। সারি সারি এসব গাছে লাল, হলুদ, সোনালী শোভায় মেলে ধরেছে তাদের সৌন্দর্য। এ পথে চলাচলকারী পথচারী, পর্যটক-দর্শনার্থী, প্রকৃতিপ্রেমীরা ফুলে ফুলে ভরা এসব দৃশ্য দেখে হন মুগ্ধ। কেউ কেউ ব্যস্ত হয়ে পড়েন ছবি তুলতে।

গাছে গাছে ফুটে থাকা রক্তলাল, হলুদ, সোনালীসহ হরেক প্রজাতির গাছের ফুলগুলো সৃষ্টি করেছে এক বৈচিত্র্যময় পরিবেশ। এ ফুলের গাছ গুলো সমহিমায় উজ্জ্বল হয়ে নিজেকে মেলে ধরেছে প্রকৃতিতে। যেন লাল, হলুদ, গোলাপী, হলুদ আর সোনালী রঙে রাঙিয়েছে প্রকৃতি।

সবচেয়ে আকর্ষণীয় সোনালু আর কৃষ্ণচূড়ার গাছ। বিশেষ করে সোনালু দুর্দান্ত ফুলের গাছ। এটি তার আকর্ষণীয় সৌন্দর্যের জন্য বিখ্যাত। শোভাময় গাছ হিসেবে এর উজ্জ্বল হলুদ ফুল সড়ক, বাগান, পথগুলিকে শোভিত করে। সোনালু ফুল তার দীপ্তিময় বর্ন দিয়ে দর্শকদের মোহিত করে। প্রকৃতির এক অপরুপ সৃষ্টি সোনালু ফুলের সৌন্দর্য। প্রকৃতিকে নয়নাভিরাম রুপে সাজিয়ে তুলতে এর জুড়ি নেই।

আজ থেকে ৬/৭ বছর আগে শ্রীমঙ্গলের ফিনলে চা কোম্পানির ভাড়াউড়া টি ডিভিশনের জেনারেল ম্যানেজার গোলাম মোহাম্মদ শিবলী ভুরভুরিয়া চা বাগানের ওই সড়কের দু’পাশসহ চা-বাগানের বিভিন্ন স্থানে ব্যক্তিগত উদ্যােগে ৭০০-৮০০ গাছ লাগিয়েছিলেন। এরপর থেকে বৃক্ষপ্রেমী গোলাম মোহাম্মদ শিবলী চা-বাগানের বিভিন্ন স্থানে একের পর এক গাছ লাগিয়ে যাচ্ছেন। সেই গাছগুলো বর্তমানে প্রকৃতিকে রাঙিয়ে শোভা বর্ধন করছে।

শ্রীমঙ্গলের ভাড়াউড়া টি ডিভিশনের জেনারেল ম্যানেজার ও বাংলাদেশীয় চা সংসদের সিলেট ব্রাঞ্চের চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ শিবলী জানান, নিজের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকেই তিনি এসব গাছ লাগিয়ে চলেছেন। তার দীর্ঘ কর্মজীবনে তিনি চা-বাগানে প্রচুর গাছ লাগিয়েছেন। এরমধ্যে ভাড়াউড়া চা বাগানের বাংলো, চা কারখানার ভিতরে ও বাইরে, লেবার লাইনসহ যেখানেই ভাল জায়গা পেয়েছেন গাছ লাগিয়েছেন। তার লাগানে ভাড়াউড়া চা কারখানার সামনের কৃষ্ণচূড়া গাছগুলোতে আগুনলাল ফুল মনোমুগ্ধকর পরিবেশ সৃষ্টি করেছে।

আরো খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ